ডিজিটাল মার্কেটিং VS গ্রাফিক্স ডিজাইন

ডিজিটাল মার্কেটিং এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন ‍দুইটি সম্পর্ন ভাবে ভিন্ন পেশা। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে একটি সাথে অন্যটি পরিপুরক। আজকে এই লেখার মাধ্যমে চেষ্টা করব ডিজিটাল মার্কেটিং এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ন বিষয় বিস্তারিত ভাবে তুলে ধরতে।

ডিজিটাল মার্কেটিং

ডিজিটাল মার্কেটিং একক কোন বিষয় নয়। ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে কন্টেন্ট মার্কেটিং, ইমেইল মার্কেটিং, ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিং, সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, এসইও, এসএমই মার্কেটিং, পিপিসি মার্কেটিং, ইত্যাদি মাধ্যম গুলোকে বুঝানো হয়ে থাকে।

যেহেতু ডিজিটাল মার্কেটিং পরিধি বড় সেহেতু তার কার্যক্রম অনেক বড় হওয়ার কথা। আমি ডিজিটাল মার্কেটিং এবং গ্রাফিক্স ডিজাইনের বেসিক কিছু ক্ষেত্রে নিয়ে আলোচনা করতে চাই। বেসিক ক্ষেত্র বলতে চাকরী, বেতন, ভবিষ্যৎ, ইত্যাদি।

ডিজিটাল মার্কেটিং

ডিজিটাল মার্কেটিং সুবিধা এবং অসুবিধা

প্রতিটি সেক্টরে কিছু সুবিধা এবং অসুবিধা দুইটি অপশনে আছে। আজকে এই লেখার মাধ্যমে আমরা জানার চেষ্টা করব ডিজিটাল মার্কেটিং ক্যারিয়ারের সুবিধা এবং অসুবিধা গুলো।

  • আপনি করপোরের্ট সেক্টরে জব করতে চাইলে ডিজিটাল মার্কেটিং সম্পর্কে ধারনা থাকাটা জরুরি। ডিজিটাল মার্কেটিং বিষয় জানা থাকলে আপনি জব পাওয়ার ক্ষেত্রে অন্যদের থেকে এক ধাপ এগিয়ে থাকবেন।
  • আপনার সিভির সাথে ডিজিটাল মার্কেটিং করার অভিজ্ঞতা যুক্ত করা মানে অতিরিক্ত সুবিধা পাবেন জব পাওয়ার ক্ষেত্র।আপনি যদি অনলাইন জব পোর্টাল গুলো ঘুরে দেখেন তাহলে বুঝতে পারবেন কি সংখ্যক ডিজিটাল মার্কেটার নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে কোম্পানি গুলোতে।
  • Linkedin গিয়ে ডিজিটাল মার্কেটিং জব লিখে সার্চ করলে প্রায় কয়েক হাজার জব লিষ্ট দেখতে পাবেন। সতরাং ডিজিটাল মার্কেটিং শিখে জব পাওয়াটা খুবই সহজ ব্যাপার।
  • একজন ডিজিটাল মার্কেটারের বেতন ২০,০০০ হাজার থেকে শুরু হয়। এটা একজন ডিজিটাল মার্কেটারের বেসিক সেলারি বলতে পারেন। বেতন নিয়ে বিস্তারিত ভাবে জানার জন্য Glassdoor থেকে ঘুরে আসতে পারেন।
  • অভিজ্ঞতা বৃদ্ধির সাথে সাথে বেতন বৃদ্ধি পেতে থাকে। এবং জবের নিশ্চয়তা শুরু হয়।
  • ডিজিটাল মার্কেটার একই সাথে অনেক গুলো সেক্টরে কাজ করতে হয়। একজন ডিজিটাল মার্কেটার একই সাথে কন্টেন্ট রাইটিং, ইমেইল মার্কেটিং, ডাটা এনালাইসিস, কন্টেন্ট মার্কেটিং, এসইও, পিপিস, প্রায় প্রতিটি ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরে জ্ঞান অর্জন করতে পারে। ফলে ডিজিটাল মার্কেটিং দক্ষতা বৃদ্ধি পায়।
  • একটা সময় পর আপনি নিজের একটি ডিজিটাল মার্কেটিং এজেন্সি ওপেন করতে পারবেন। এবং বেশির ভাগ ডিজিটাল মার্কেটার এই দিকটায় কনভার্ট হয়ে যায়।
  • এই সেক্টরে জব করে আয় করা অর্থের উপর কোন ধরনের আয় কর এখন পর্যন্ত দিতে হয় না। বরং অনেক দেশ আয় কৃত অর্থের উপর প্রনোদনা দিয়ে থাকে। প্রনোদনা পাওয়ার জন্য আপনাকে ডলারে আয় করতে হবে।
  • আপনি প্রতিদিন নতুন কিছু শিখতে পারবেন। কারন ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরে শেখার কোন শেষ নেই। ফলে আপনার মধ্যে কোন ধরনের বিরক্তির ভাব আসবে না।
  • জবের পাশাপাশি ফ্রিল্যান্সিং করে অতিরিক্ত অর্থ আয়ের সুযোগ আছে।
  • ডিজিাল মার্কেটিং অনেক বড় সেক্টর হওয়ার কারনে অনেক কিছু জানতে হয়। প্রতিদিন নিত্য নতুন কৌশল শিখতে হয়। আপনি একই কৌশল বার বার ব্যবহার করে সফলতা নাও পেতে পারেন।
  • কাজের প্রচুর চাপ থাকে। এবং প্রতিটি ক্ষেত্রে চ্যালেন্স নিয়ে কাজ করতে হয়।

গ্রাফিক্স ডিজাইনারের সুবিধা এবং অসুবিধা

প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে গ্রাফিক্স ডিজাইনারের দরকার হয়ে থাকে। যে কোন ধরনের পন্য উৎপাদন করি প্রতিষ্টান বা সেবা দানকারী প্রতিষ্টারেনর জন্য গ্রাফিক্স ডিজাইনার থাকাটা আবশ্যক।

  • যেহেতু গ্রাফিক্স ডিজাইন ক্রিয়েটিভ ওয়ার্ক সেহেতু প্রতি ঘন্টা পেমেন্ট নির্ধারন করা হয় না। সাধারনত গ্রাফিক্স ডিজাইনার কাজ শেষে পেমেন্ট পেয়ে থাকে।
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন করার ক্ষেত্রে বায়ারকে খুশি করা বড় চ্যালেন্স।
  • একই কাজ কাজ বার বার করার ফলে এক ধরনের বিরক্তির ভাব চলে আসে।
  • প্রতি দিন আপনাকে রিসার্স করতে হবে ডিজাইন ট্রেডিং নিয়ে।
  • একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার ক্যারিয়ারের শুরুতে ২৪,০০০ হাজার টাকা প্রতি মাসে শুরু করে। সূত্র ( Glassdoor )
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন সেক্টরে অভিজ্ঞতার মূল্যায়ন থাকলেও জব স্থায়ী হওয়ার সম্ভব না কমে যায়।
  • ডিজাইন রিলেটেড অনেক টুল থাকার কারনে ছোট এজেন্সি গুলো ভিন্ন ভাবে গ্রাফিক্স ডিজাইনার হায়ার করে না। যেনম Canva একটি ডিজাইন রিলেটেড টুল যার মাধ্যমে ইনফোগ্রাফি, লোগো, প্লাকার্ড, ফেসবুক পোষ্ট, ইনন্সটাগ্রাম পোষ্ট, গ্রাফ, চার্ট, ইত্যাদি কাজ সহজে করা যায়।
  • ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেস গুলোতে গ্রাফিক্স ডিজাইনারের একটি বিষয় চাহিদা রয়েছে। কিছু ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেস গুলো গ্রাফিক্স ডিজাইনারকে টার্গেট করে তৈরি করা হয়েছে। যেমন 99Designs শুধু মাত্র গ্রাফিক্স ডিজাইনারের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে।
  • গ্রাফিক্স ডিজাইনার বেতন ২৪,৫০০ বেস সাথে অতিরিক্ত পেমেন্ট ২৪,০০০

শেষ কথাঃ

প্রতি ক্ষেত্রে ভালো এবং মন্দ দুইটি বিষয় জড়িত। আমি মনে করি যে কাজকে আপনি মন থেকে ভালো বাসতে পারলে অবশ্যই একদিন সফল হবেন।

আমার কথা হল আপনি এমন ভাবে কাজ শিখুন যেন অন্য সবাই আপনাকে অনুকরন করে। একই কাজ ভিন্ন ভাবে করুন। নিজের বেসিক ঠিক রেখে অন্য ভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা করুন। নিজের ক্রিয়েটিভ চিন্তা ভাবনার উন্নায়ন ঘটান। এমন ভাবে কাজ শিখুন যেন কাজ আপনাকে খুঁজে বের করে।

ধন্যবাদ

Click the above button to visit next page

You visited 1/10 pages

This div height required for enabling the sticky sidebar